জেলেপল্লীতে হাহাকার, নিষেধাজ্ঞার শেষ দিনেও মিলেনি খাদ্য সহায়তা

চলছে ইলিশের প্রজনন মৌসুম। নদী ও সাগরে মাছ শিকারে সরকারীভাবে জারি রয়েছে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা। মাছ শিকার করতে না পারায় কর্মহীন উপকূলের হাজারও জেলে। বেকার এসব জেলেদের খাদ্য সহায়তা হিসেবে ২০ কেজি করে চাল বরাদ্ধ দিয়েছে সরকার। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার ২২ দিনের মধ্যে ২১ দিনই চলে গেছে।

এখানো পর্যন্ত পটুয়াখালীর উপকূলীয় রাঙ্গাবালী উপজেলার জেলেদের ভাগ্যে জুটেনি সেই খাদ্য সহায়তা। বিকল্প কোন আয়ের উৎস না থাকায় জেলে পেশায় নির্ভর এসব কর্মহীন মানুষ এখন চরমভাবে বিপাকে পরেছেন। অনেকের ঘরের চুলায় আগুন জ্বালাতেও হিমশিম খেতে হচ্ছে। অনাহারে অর্ধহারে কোন মতো দিন পার করছেন তারা।

জেলেদের অভিযোগ, চেয়ারম্যান-মেম্বরদের কাছে গেলে তারা বলেন মৎস বিভাগের কথা। আর মৎস বিভাগ বলছেন দ্রুত সময়ের সময়ের মধ্যেই চাল বিতরণ শেষ হয়ে যাবে।

উপজেলা মৎস কর্মকর্তা আনোয়ারুল হক বাবুল জানান, রাঙ্গাবালী উপজেলায় মোট ১৩ হাজার ৮৪৭ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যানদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। দুয়েক দিনের মধ্যেই সব ইউনিয়নের চাল বিতরণ কার্যক্রম শেষ করবেন।

সাইফুল ইসলাম সায়েম/বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো