সহিংসতায় জড়িত প্রমাণ হলে রাজনীতি ছাড়বেন বুলু

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে হিন্দুদের মন্দির ও বাড়িঘরে হামলার ঘটনায় গ্রেফতারের পর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা কমল তার জবানবন্দিতে বলেছেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লাহ বুলু এর সাথে জড়িত আছেন।

তবে বুলে বলছেন, বেগমগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে হিন্দুদের বাড়িঘর, মন্দির কিংবা পূজামণ্ডপে হামলার ঘটনায় আমার সংশ্লিষ্টতা বিন্দুমাত্র প্রমাণ করতে পারলে রাজনীতিই ছেড়ে দেবো। আমার ৫০ বছরের রাজনৈতিক, সামাজিক ও পারিবারিক জীবনকে হেয় প্রতিপন্ন করতেই এ ধরনের ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। যারা এ ধরনের ষড়যন্ত্র করছেন, অবিলম্বে তাদের বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) গণমাধ্যমের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি।

বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ বলেন, একজন মুসলমান হিসেবে কোরআন শপথ করে বলছি, এ ঘটনায় বিন্দুমাত্র সংশ্লিষ্টতা থাকলে আমি রাজনীতি করবো না, দেশত্যাগ করবো। যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছেন, তাদের দুনিয়ায় বিচার না হলেও আল্লাহর কাছে দায়ী থাকবেন। বেগমগঞ্জবাসীসহ পুরো দেশবাসীর কাছে তারা দায়ী থাকবেন।

তিনি আরও বলেন, বেগমগঞ্জে হিন্দুদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, মন্দির ও বাড়িতে হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় নোয়াখালীতে প্রশাসনিকভাবে সংবাদ সম্মেলনে আমার নাম আনা হয়েছে। স্বেচ্ছাসেবক দলের এক নেতাকে থানায় না রেখে পুলিশ লাইনে আটকে রেখে ১৬৪ ধারায় তার জবানবন্দি নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনার পরপরই আমি গণমাধ্যমে বক্তব্য দিয়েছি।

তিনি বলেন, ভারতে যখন বাবরি মসজিদ ভাঙা হয়, তখন আমি হিন্দুদের পাশে কিভাবে ছিলাম তা বেগমগঞ্জবাসী জানে। আমি বিশেষভাবে অনুরোধ করবো, ১০৫ বছর বয়সী শ্রীকৃষ্ণ মিস্টান্ন ভাণ্ডারের মালিক বাবুর সম্পত্তি দখল হয়ে যাওয়া সম্পদ কিভাবে উদ্ধার করেছি তাকে জিজ্ঞাসা করলেই পাওয়া যাবে।

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো