জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে প্রাথমিকের ক্ষুদে ডাক্তারদের কার্যক্রম

সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ক্ষুদে ডাক্তার কার্যক্রম। এই কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীদের মধ্যে নিয়মিত স্বাস্থ্য সচেতনতায় ইতিবাচক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

বিদ্যালয়ের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা, শিক্ষার্থীদের গোসল, সাবান দিয়ে সঠিক নিয়মে হাত ধোয়া, নখ কাটা, চুল ছোট রাখা, দাঁত মাজা ও পোশাক পরিচ্ছেদ সুন্দর রাখা এবং বিভিন্ন দিবসে দায়িত্ব পালনসহ স্বাস্থ্য বিজ্ঞান বিষয়ে নেতৃত্ব দিচ্ছে ক্ষুদে ডাক্তার দলের সদস্যরা।

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার তেবাড়িয়া শেরকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দেখা মেলে একদল ক্ষুদে ডাক্তারের। যেসব ডাক্তাররা চিকিৎসা দিচ্ছেন তাদের বয়স ৮ থেকে সর্বোচ্চ ১২।

উপজেলায় ১৪৭টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতিটি বিদ্যালয়ে ১৫-২১ সদস্য বিশিষ্ট একটি ক্ষুদে ডাক্তার দল থাকার কথা। উপজেলা সব কয়টি বিদ্যালয়ে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি করে ক্ষুদে ডাক্তার দল রয়েছে। এই দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন একজন হাইজিন (স্বাস্থ্য বিজ্ঞান) শিক্ষক।

তারা সবাই কর্ম নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত। কেউ রোগীদের নাম তালিকাভুক্ত করছে, কেউ গম্ভীর মুখে রোগীদের ওজন মাপছে, আবার কেউ দৃষ্টিশক্তি পরীক্ষা করছেন। কোনো শারীরিক সমস্যা চিহ্নিত করতে পারলে সঙ্গে সঙ্গেই তা রোগীকে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। রোগী তার অভিভাবকের মাধ্যমে নিজ নিজ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা নেবেন।

পরে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের কাছে সেবা নিতে পরামর্শ প্রদান করবেন। সারা দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ন্যায় ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও টিম গঠন করে ৭ থেকে ১২ বছর বয়সী একদল ক্ষুদে ডাক্তার তাদের স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। দেশব্যাপী প্রতিটি সরকারি বিদ্যালয়, কিন্ডারগার্টেন, এনজিও পরিচালিত বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠান এই কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

প্রতিবছর দুই দফায় এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হয়। প্রতিমাসে দুবার বিদ্যালয়ে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

তেবাড়িয়া শেরকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আজমল হোসেন বিল্লাল বলেন, তার বিদ্যালয়ের ক্ষুদে ডাক্তার দলের সদস্যরা বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্বাস্থ্যাভ্যাস গড়ে তুলতে সক্রিয় ভুমিকা পালন করছে। তিনি বলেন, বিদ্যালয়ে ক্ষুদে ডাক্তার দলের একটি হাইজিন কর্ণার রয়েছে। এখানে ক্ষুদে ডাক্তার দলের সদস্যরা স্বাস্থ্য বিষয়ক বিভিন্ন বার্তা শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে দিয়ে থাকে। এতে করে ক্ষুদে ডাক্তার দলের সদস্যরা নিজ নিজ এলাকায় স্বাস্থ্যসেবায় ভূমিকা রাখার জন্য তৈরী হচ্ছে।

পর্যায়ক্রমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে কৃমি নিয়ন্ত্রণ, জলাতঙ্ক, ম্যালেরিয়া, পুষ্টিহীনতা, ভিটামিন এ-প্লাস ক্যাম্পেইন, ব্যক্তিগত স্বাস্থ্য পরিচর্যা বিষয়ে স্বাস্থ্য-শিক্ষা প্রদানসহ শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করা হয়।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মুস্তাফিজুর রহমান জানান, ক্ষুদে ডাক্তারদের কার্যক্রম একটি ভাল উদ্যোগ। এর মাধ্যমে নিজেদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে তারা সচেতন হয়ে উঠছে এবং অন্যদেরকেও তারা সচেতন করে তুলছে। এমন উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি পাবে।

মোশারফ হোসেন/বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো