মোটা শিশুদের ভর্তি করছে না মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল

রাজধানীর মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের আসন্ন ২০২২ শিক্ষা বর্ষে প্লে গ্রুপে মোট শিশুদের ভর্তি করার ক্ষেত্রে বিধি নিষেধ বেঁধে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তারা শিক্ষার্থীদের যোগ্যতা হিসেবে বয়স, উচ্চতা, ওজন, দুধদাঁত, শারীরিক ও মানসিক সুস্থতার বিষয়টি বিশেষভাবে বিবেচনা করছে।

প্রতিষ্ঠানটিতে ভর্তির যোগ্যতা ও নিয়মাবলিতে মোটা হরফে লেখা রয়েছে, লটারিতে উত্তীর্ণ হওয়ার পরও যদি কোনো শিক্ষার্থী প্রাতিষ্ঠানিক শর্ত (শিক্ষার্থীর যোগ্যতা) পূরণে ব্যর্থ হয়, তবে সে ভর্তির জন্য অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে। অর্থাৎ শর্তের অতিরিক্ত ওজন বা কম ওজন, বেশি লম্বা বা খর্ব কোনো শিশু স্কুলটিতে ভর্তি হতে পারবে না।

স্কুলটির ওয়েবসাইটে ২০২২ সালে প্লে গ্রুপে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীর যোগ্যতা ও নিয়মাবলির একটি বিজ্ঞপ্তি দেওয়া আছে। কয়েকজন অভিভাবকের কাছ থেকে বিজ্ঞপ্তির শর্তের বিষয়টি জানতে পারে প্রথম আলো। পরে মোহাম্মদপুরের আসাদ অ্যাভিনিউয়ে অবস্থিত স্কুলের একটি শাখার অফিসকক্ষ থেকে গতকাল বুধবার বিজ্ঞপ্তিটি সংগ্রহ করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে দেখা যায়, ‘শিক্ষার্থীর যোগ্যতা’ অংশে তিনটি শর্ত দেওয়া আছে। এগুলো হলো—বয়স, উচ্চতা ও ওজন।

বয়সের শর্তে লেখা আছে, ১ জানুয়ারি ২০২২ সালে বয়স চার থেকে পাঁচ বছরের মধ্যে হতে হবে।

উচ্চতার শর্তে বলা হয়েছে, তিন ফুট থেকে তিন ফুট আট ইঞ্চির মধ্যে হতে হবে।

ওজনের শর্তে লেখা আছে, ১৩ থেকে ২১ কেজির মধ্যে হতে হবে।

ওজনের অংশে তিনটি উপশর্ত দেওয়া হয়েছে। এগুলো হলো—শিক্ষার্থীর সব দুধদাঁত (২০টি) অটুট থাকতে হবে। শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ হতে হবে। ছোঁয়াচে রোগ থাকলে ভর্তির জন্য বিবেচিত হবে না।

তবে বিদ্যালয়টির এমন সিদ্ধান্তের ঘোর বিরোধীতা করে শিক্ষাবিদ ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা শিক্ষাবিদ রাশেদা কে চৌধূরী বলেন, সরকার যেখানে সব শিশুকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আনার জন্য গুরুত্ব দিচ্ছে, সেখানে এ ধরনের শর্ত আরোপ দুঃখজনক। এই শর্ত সরকারের ‘সবার জন্য শিক্ষা’ কর্মসূচির উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যের পরিপন্থী। ওজন কম বা বেশি তো কোনো বিষয়ই নয়, প্রতিবন্ধিতা থাকলেও শিশুকে স্কুলে ভর্তি করতে হবে।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ বেলায়েত হুসেন বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য, শিক্ষার্থীদের জন্য স্কুলে সুন্দর একটি পরিবেশ নিশ্চিত করা। মোটা বাচ্চারা দুষ্টু বেশি হয়। তাদের চেয়ে অন্য বাচ্চাদের সহজে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। অনেক অভিভাবক সন্তানদের বয়স কমিয়ে প্লে গ্রুপে ভর্তি করানোর চেষ্টা করেন। এতে বয়সে ছোটরা ওই সব বড় শিশুর সঙ্গে মানিয়ে চলতে পারে না। এ কারণে বয়স হিসাব করতে দুধদাঁত না পড়ার বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো