শাশুড়িকে বিদেশ নিতে চেষ্টা চালাচ্ছেন কোকোর স্ত্রী শর্মিলা

বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ নিতে তার চিকিৎসকরা একাধিকবার পরামর্শ দিলেও সাজাপ্রাপ্ত আসামি হওয়ায় সরকার সম্মত হচ্ছে না।

এমতাবস্থায় খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করছেন, যেন শাশুড়িকে বিদেশ নেওয়া যায়।

বিএনপির দলীয় একটি সূত্র জানিয়েছে, করোনা ও পরবর্তী বিভিন্ন উপসর্গে ভোগে ৫৩ দিন হাসপাতালে অবস্থানের পর ১৯ জুন বাসায় ফেরেন খালেদা জিয়া। আবারও অসুস্থ হয়ে পড়লে ১২ অক্টোবর ভর্তি করা হয় এভার কেয়ার হাসপাতালে। ২৪ অক্টোবর যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরে বিমানবন্দর থেকে সরাসরি হাসপাতালে খালেদা জিয়াকে দেখতে যান শর্মিলা। পরদিন খালেদার একটি ছোট অপারেশন হয়।

এরপর থেকেই শাশুড়ির উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে বিভিন্ন স্থানে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন শর্মিলা। তবে এসব বিষয়ে বিএপির দলীয় কিংবা চিকিৎসক দলের কেউ গণমাধ্যমের সাথে কথা বলতে রাজি হয়নি। এমনকি খালেদা জিয়ার মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়াকে লন্ডন অথবা আমেরিকা কিংবা সিঙ্গাপুরে নিতে চায় তার পরিবার। সেক্ষেত্রে সরকারের নির্বাহী আদেশ ছাড়া কিছুই সম্ভব না। হাইকোর্টে জামিন লাভে ব্যর্থ হয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্বাহী আদেশেই কারাগার থেকে বাসায় থাকতে পারছেন খালেদা। তাই বিদেশ যাওয়ার ক্ষেত্রেও সরকারের বিশেষ আদেশই আবশ্যক।

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো