স্ত্রীকে মারতে গিয়ে ভুলে অন্য নারীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের নোবদয় হাউজিং সোসাইটি এলাকায় ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত আয়েশা সিদ্দিকা (২২) চিকিৎসাধীন অবস্থায় অবশেষে মারা গেছেন। শুক্রবার (২৯ অক্টোবর) বিকাল ৪টার দিকে ঢাকে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান। ভোর ৬টার দিকে তাকে ছুরিকাঘাত করেন সেকুল মিয়া নামে এক ব্যক্তি।

পুলিশ জানায়, নিজের স্ত্রী মনে করে আয়েশাকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে সেকুল।

আয়েশার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ আঁড়ির ইনচার্জ আব্দুল খান জানান, ভোরে নবোদয় হাউজিং এলাকায় ছুরিকাঘাতে আহত হয় ওই নারী। পরে তাকে ঢামেকে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেলে তার মৃত্যু হয়।

আয়েশার বোন খালেদা জানান, আয়েশা মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধে সাইনেষ্ট গ্রুপ গার্মেন্টসে চাকরি করতেন। তার স্বামী রুবেল ঢাকা উদ্যানে ইলেক্ট্রিকের কাজ করেন। তাদের গ্রামের বাড়ি দিনাজপুর জেলার বিরল উপজেলায়। ভোরে আয়েশা গার্মেন্টসে যাওয়ার পথে অজ্ঞাত কেউ ছুরিকাঘাত করে তাকে আহত করে। পরে তার চিৎকারে আশপাশের কয়েকজন ছুটে আসলে একজন পালিয়ে গেলেও আরেকজনকে ধরে ফেলে তারা। খবর পেয়ে আয়েশাকে হাসপাতালে নিয়ে আসি।

এদিকে মৃত্যুর আগে আয়েশা জানান, রিকশা নিয়ে গার্মেন্টসে যাচ্ছিলাম। পথে নবোদয় হাউজিং বাজারের কাছে আসলে দুই ব্যক্তি আমাকে রিকশা থেকে নামিয়ে একজন ধরে রাখে আরেকজন ছুরিকাঘাত করে। তারা আমার কাছ থেকে কিছুই নেয়নি।

মোহাম্মদপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ জানান, এক নারী গার্মেন্টস কর্মীকে কেচি দিয়ে আঘাত করে পালিয়ে যাওয়ার সময় সেকুল মিয়া (৩০) নামে এক জনকে স্থানীয়রা ধরে থানায় সোর্পদ করে। সে একজন ট্রাক ড্রাইভার।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সেকুল জানায়, নিজের বউয়ের সঙ্গে তার বিরোধ ছিল। ঘটনার সময় আয়েশা ও তার বউ একই বোরকা পরে রিকশায় করে যাচ্ছিলেন। তাই নিজের বউ মনে করে সে আয়েশাকে ছুরিকাঘাত করে।

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো