উদ্ধারের পর ভাঙ্গারির দোকানে যেতে পারে সেই ফেরিটি

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়ার ৫নং ঘাটের কাছে কাত হয়ে ডুবে যাওয়া ফেরিটি উদ্ধার করতে কাজ শুরু করতে যাচ্ছে বেসরকারি উদ্ধারকারী প্রতিষ্ঠান জেনুইন এন্টারপ্রাইজ। তবে উদ্ধারের পর ফেরিটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হতে পারে বলেও জানা গেছে।

রোববার (৩১ অক্টোবর) জেনুইন এন্টারপ্রাইজের ম্যানেজার অজয় দেবনাথ জানান, সোমবার ভোরের মধ্যে ডুবুরি ও প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ঘটনাস্থলে পৌঁছাবে। মূলত বার্জ দিয়ে টেনে সোজা করা হবে ফেরিটি। দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে প্রতিষ্ঠানটিকে নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)।

এদিকে বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম জানান, উদ্ধারের পর ফেরিটি নিয়ে কি করা হবে সে বিষয়ে আমরা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত চাইব। এখনো এটি রিপেয়ার (সংস্কার) করার সিদ্ধান্ত হয়নি। যেহেতু ফেরিটির অনেক বয়স হয়েছে এটি রিপেয়ার করলে কত দিন চালানো যাবে তা বলা যাচ্ছে না। আমরা পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে এটিকে নিলামে বিক্রি করে দিতে পারি।

জানা যায়, ১৯৮০ সালে আমানত শাহ নামে এই রো রো ফেরিটি বিআইডব্লিউটিসি সংগ্রহ করে। অভ্যন্তরীন নৌ চলাচল অধ্যাদেশ অনুযায়ী ফেরিটির অর্থনৈতিক জীবন শেষ হয়ে গেছে।

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো