মাগুরায় মধুমতি নদীতে বিহারী লাল শিকদার নৌকা বাইচ

মাগুরা জেলার মহম্মদপুর উপজেলায় মধুমতি নদীতে আবহমান গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী বিহারী লাল শিকদার নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

লক্ষাধিক দর্শকের উপস্থিতি আনন্দ, উল্লাস আর ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) বিকালে এই নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। সংগীতের তাল-লয়ে বাইচালদের ছন্দময় বৈঠা চালানোয় ময়ূরপঙ্খীর মতোই ঝিলমিল করে মধুমতির বুকে। উল্লাসে মেতে উঠে নদী পাড়ের দর্শকরা।

মহম্মদপুর উপজেলা ক্রীড়াসংস্থা এ মেলার আয়োজন করে। মেলাকে ঘিরে মধুমতি নদীর এলাংখালি ঘাট এলাকা ও নদীর দুই ধারের প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে দোকান-পাট ও বাহারী পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসে দোকানীরা।

৯ বছর ধরে চলে আসা এ নৌকা বাইচ উপভোগ করতে মধুমতি নদীর তীরে মাগুরা, নড়াইল, ফরিদপুরসহ কয়েকটি জেলার মানুষ ভীড় করে। এলাকায় সৃষ্টি হয় আনন্দঘণ ও উৎসব মূখর পরিবেশ।

বেলুন ও শান্তির প্রতীক কবুতর উড়িয়ে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি মাগুরা-২ আসনের সংসদ সদস্য সাবেক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার। মহম্মদপুর উপজেলার ইউএনও রামানন্দ পালের সভাপতিত্বে নৌকা বাইচ মেলায় উপস্থিত ছিলেন মহম্মদপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আবু আব্দুল্লাহ কাফি, ওসি নাসির উদ্দিন, ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেবী নাজনীন প্রমুখ।

বাইচে অংশ নেয় বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা ছোট-বড় ২৮টি নৌকা। তাদের মধ্যে খুলনার তেরোখাদার আব্দুস সালাম মুর্সিদীর নৌকা সোনার তরী প্রথম স্থান অধিকার করে ৩০ হাজার টাকা পুরস্কার পেয়েছে। ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার মোকলেস মোল্লার নৌকা সবুজ সাথী দ্বিতীয় স্থান ও গোপাল গঞ্জের আলফাডাঙ্গার হারান মাঝির নৌকা জলপরি তৃতীয় স্থান অধিকার করে। তাদের যথাক্রমে ২০ হাজার ও ১৫ হাজার টাকা করে পুরস্কার দেওয়া হয়।

মাগুরা জেলার মহম্মদপুর উপজেলায় মধুমতি নদীতে আবহমান গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী বিহারী লাল শিকদার নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

লক্ষাধিক দর্শকের উপস্থিতি আনন্দ, উল্লাস আর ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) বিকালে এই নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। সংগীতের তাল-লয়ে বাইচালদের ছন্দময় বৈঠা চালানোয় ময়ূরপঙ্খীর মতোই ঝিলমিল করে মধুমতির বুকে। উল্লাসে মেতে উঠে নদী পাড়ের দর্শকরা।

মহম্মদপুর উপজেলা ক্রীড়াসংস্থা এ মেলার আয়োজন করে। মেলাকে ঘিরে মধুমতি নদীর এলাংখালি ঘাট এলাকা ও নদীর দুই ধারের প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে দোকান-পাট ও বাহারী পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসে দোকানীরা।

৯ বছর ধরে চলে আসা এ নৌকা বাইচ উপভোগ করতে মধুমতি নদীর তীরে মাগুরা, নড়াইল, ফরিদপুরসহ কয়েকটি জেলার মানুষ ভীড় করে। এলাকায় সৃষ্টি হয় আনন্দঘণ ও উৎসব মূখর পরিবেশ।

বেলুন ও শান্তির প্রতীক কবুতর উড়িয়ে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি মাগুরা-২ আসনের সংসদ সদস্য সাবেক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার। মহম্মদপুর উপজেলার ইউএনও রামানন্দ পালের সভাপতিত্বে নৌকা বাইচ মেলায় উপস্থিত ছিলেন মহম্মদপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আবু আব্দুল্লাহ কাফি, ওসি নাসির উদ্দিন, ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেবী নাজনীন প্রমুখ।

বাইচে অংশ নেয় বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা ছোট-বড় ২৮টি নৌকা।তাদের মধ্যে খুলনার তেরোখাদার আব্দুস সালাম মুর্সিদীর নৌকা সোনার তরী প্রথম স্থান অধিকার করে ৩০ হাজার টাকা পুরস্কার পেয়েছে। ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার মোকলেস মোল্লার নৌকা সবুজ সাথী দ্বিতীয় স্থান ও গোপাল গঞ্জের আলফাডাঙ্গার হারান মাঝির নৌকা জলপরি তৃতীয় স্থান অধিকার করে। তাদের যথাক্রমে ২০ হাজার ও ১৫ হাজার টাকা করে পুরস্কার দেওয়া হয়।

তাছিন জামান/বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো