ভাড়া শতভাগ না বাড়ালে লঞ্চ চালাবে না মালিকরা

দেশে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর লঞ্চ মালিকদের দাবি ছিল ভাড়া যেন শতভাগ বাড়ানো হয়। এজন্য তারা শনিবার (৬ নভেম্বর) দুপুর পর্যন্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময়ও বেঁধে দিয়েছিল। কিন্তু কোনো সিদ্ধান্ত না হওয়ায় সড়ক পথের পর লঞ্চ মালিকরাও ধর্মঘটের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

শনিবার বিকালে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল সংস্থার সিনিয়ত ভাইস চেয়ারম্যান বদিউজ্জামান বাদল জানান, আমরা ভাড়া বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছিলাম। সরকার এতে সাড়া দেয়নি। কথা ছিল দুপুরের মধ্যে আমাদের ডেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। কিন্তু সেটা হয়নি। মালিকরা বলছেন, লস দিয়ে তারা আর লঞ্চ চালাবেন না। সদরঘাটের টার্মিনাল থেকে সব লঞ্চ সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

তিনি জানান, বদিউজ্জামান বাদল আরও বলেন, মালিকরা বলছেন, আমাদের কাছে টাকা নেই, তেল কিনতে পারবো না। তাই জাহাজ চালাবো না। তেলের দাম বাড়ানোর পর প্রত্যেক ট্রিপে এক লাখ, দেড় লাখ, দুই লাখ টাকা লস। আমাদের সাহায্য করেন। আমরা বলেছি, সাহায্য তো আমরা করতে পারবো না। তারা বলছেন, তাহলে তো আমরা লঞ্চ চালাবো না।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার থেকে জ্বালানি তেলের দাম ৬৫ টাকা থেকে ৮০ টাকা করা হয়। এরপর থেকেই শুরু হয় নানা সমালোচনা। ভাড়া বাড়ানোর জন্য পরিবহন খাতের মালিকরা শুরু করে ধর্মঘট।

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো