১৫ দিনের নবজাতককে বালতিতে ফেলে হত্যা!

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ১৫দিন বয়সী ঘুমন্ত নবজাতকে তুলে নিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। ঘরের বাথরুমের পানির বালতি থেকে তার নিথর দেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এ ঘটার দু’দিনেও মেলেনি এই হত্যার রহস্য।

শুকেবার (৫ নভেম্বর) পৌর শহরের কালিপুর মধ্যপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত নবজাতকের নাম ইয়ান। সে ইদ্রিস-শাকিলা দম্পতির প্রথম সন্তান। বাবা ইদ্রিস মিয়া পেশায় একজন মোবাইল মেকানিক। তার রহস্যজনক মৃত্যুতে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল আনুমানিক ১১টার দিকে ইদ্রিস মিয়ার স্ত্রী শাকিলা বেগম তার ১৫ দিন বয়সী নবজাতক
শিশুকে সাথে নিয়ে নিয়ে নিজ শয়নকক্ষে সুয়ে ছিলেন। এসময় বাচ্চাটিকে গোসল করাতে ডাকতে আসেন নবজাতকের দাদী শামসুন্নাহার বেগম। এসময় তিনি বাচ্চাটিকে বিছানায় দেখতে না পেয়ে বাচ্চার মাকে ঘুম থেকে ডেকে তুলেন এবং বাচ্চা কোথায় জানতে চান। এসময় তাদের দুজনের ডাক-চিৎকারে প্রতিবেশী লোকজন এগিয়ে আসে এবং বাচ্চাটিকে খোঁজতে শুরু করেন।

এক পর্যায়ে বাড়ির বাথরুমের দরজা খুলে বাচ্চাটিকে বালতির পানিতে ডুবন্ত অবস্তায় দেখতে পান নবজাতকের চাচা দাউদ মিয়া। পরে বাচ্চাটিকে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনাটি থানায় জানানো হলে ভৈরব থানার এসআই রফিক হাসপাতাল থেকে নবজাতকের মরদেহ থানায় নিয়ে আসে।

এ বিষয়ে ভৈরব থানার পরিদর্শক (অপারেশন) তারিকুল আলম জুয়েল জানান, এ ঘটনায় শনিবার ৪টা পর্যন্ত পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো
লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়নি। তবে এটি রহস্যজনক মৃত্যু ধারণা করা হচ্ছে এটি একটি হত্যাকাণ্ড, পরিবারের প্রত্যেক সদস্যকেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এছাড়াও মরদেহ ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসেনি। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট ও তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জামাল আহমেদ/বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো