‘শিবির নেতা’ চেয়ারম্যান হলেন নৌকার টিকিটে

সিলেটের কোম্পানিগঞ্জে শিবিরের সাবেক নেতা ইকবাল হোসেন ইমাদ। তবে আওয়ামী লীগের টিকিটে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হয়েছেন।

কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রণিখাই ইউপিতে আওয়ামী লীগের হয়ে নৌকার পালে হাওয়া লাগিয়ে তীরে ভিড়িয়েছেন। যেখানে সিলেট জেলার ৩টি উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের ৯টিতেই ভরাডুবি হয়েছে নৌকার। সেখানে বিজয়ী ৬ জনের একজন ইমাদও।

ইকবাল ৩ হাজার ৭২২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রার্থী টেলিফোন প্রতীকে শামস উদ্দিন শাহীন ২৫৯৫ ভোট পেয়েছেন।
বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) উপজেলার দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ভোট গণনা শেষে তাকে বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়।

সিলেটের কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে ব্যাপক আলোচিত ‘শিবির নেতা’ইকবাল হোসেন ইমাদ। কোম্পানিগঞ্জ উপজেলা ছাত্র শিবিরের সাবেক সেক্রেটারি ইকবাল হোসেন ইমাদকে নৌকার প্রার্থী ঘোষণায় দলীয় নেতাকর্মীদের ক্ষোভ প্রকাশ্যে আসে। তাকে সাবেক শিবির নেতা হিসেবে প্রমাণ করতে সংবাদ সম্মেলন করে আওয়ামী লীগের একটি পক্ষ। এ নিয়ে গণমাধ্যমেও একের পর এক প্রতিবেদনে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। কিন্তু প্রার্থীতা বাতিল না করে তার ওপরই ভরসা রাখে আওয়ামী লীগ! অবশেষে তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীকে নির্বাচিত হয়েছেন।
দলীয় সূত্র জানায়, দ্বিতীয় ধাপে ইউনিয়ন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সিলেটের ৩ উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নে কাউন্সিলরদের ভোটে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের নাম চুড়ান্ত করে কেন্দ্রে পাঠায় সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত প্রার্থীদের নাম ঘোষণার পরপরই কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী নিয়ে সিলেটজুড়ে শুরু হয় সমালোচনার ঝড় ওঠে।

অভিযোগ ওঠে, ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে ‘ম্যানেজ’ করেই ইকবাল নৌকা প্রতীক বাগিয়ে নেন বলেও অভিযোগ ছিল। অবশেষে সবকিছু ছাপিয়ে নৌকা চড়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন ইকবাল হোসেন ইমাদ।

বার্তাবাজার/কামাল

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো