৪০০ জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করলেন কিশোরী

নাবালিকার উপর নারকীয় অত্যাচারের অভিযোগ উঠেছে মহারাষ্ট্রের বীড জেলায়। গত ছ’মাস ধরে ৪০০-র বেশি ব্যক্তি ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ ১৬ বছরের এক কিশোরীর। ওই নাবালিকার দাবি, থানায় অভিযোগ জানাতে গিয়েও এক পুলিশকর্মীর লালসার শিকার হতে হয়েছে তাকে। বর্তমানে ওই নির্যাতিতা কিশোরী দু’মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

চলতি সপ্তাহে অভিযোগ দায়ের হয়েছে পুলিশে। বীড জেলার পুলিশ সুপার রাজা রামাস্বামী জানিয়েছেন, নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে তিন জনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। রবিবার রাজা বলেছেন, ‘‘নির্যাতিতার অভিযোগের ভিত্তিতে শিশুবিবাহ, ধর্ষণ, যৌননিগ্রহ এবং পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত ছ’মাসে ৪০০ জন নাবালিকাকে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ। এক পুলিশকর্মীও ধর্ষণে অভিযুক্ত। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।’’

নির্যাতিতা নাবালিকার অভিযোগ থেকে জানা গিয়েছে, তার মা মারা গিয়েছেন বেশ কয়েক বছর আগে। আট মাস আগে তার বাবা বিয়ে দিয়ে দেন। নাবালিকার অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির লোকেরা তাকে মারধর করে। খারাপ ব্যবহার করে। সেখান থেকে পালিয়ে বাবার কাছে ফিরে এসেছিল সে। কিন্তু বাবা আশ্রয় দেননি। তার পর বীড জেলার আম্বাজোগাই বাসস্ট্যান্ডে বাধ্য হয়ে ভিক্ষা চাইতে শুরু করে সে। এই সময় থেকেই তার উপর অত্যাচার শুরু হয়েছিল বলে জানিয়েছেন ওই নাবালিকা।

এক শিশু অধিকাররক্ষা কমিটিকে নাবালিকা বলেছে, ‘‘বহু লোক আমাকে নির্যাতন করেছে। আমি আম্বাজোগাই থানায় অভিযোগ জানাতে অনেক বার গিয়েছি। কিন্তু অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি। এক পুলিশকর্মীও আমার উপর অত্যাচার করেছে।’’ সব শেষে এ সপ্তাহে দায়ের হয়েছে অভিযোগ। যদিও গ্রেফতার হয়েছে মাত্র তিন জন। সূত্র- আনন্দবাজার পত্রিকা।

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো