পাকিস্তানে ধর্ষকের পুরুষত্ব কেড়ে নেওয়ার আইন পাস

পাকিস্তানের পার্লামেন্টে নতুন আইন পাস হয়েছে। একাধিকবার যদি কোনো পুরুষ ধর্ষণে অভিযুক্ত প্রমাণিত হয় তবে তার পুরুষত্ব কেড়ে নেওয়া হবে। ওষুধ প্রয়োগের মাধ্যমে পুরুষত্ব কমিয়ে নেওয়ার এই আইন দক্ষিণ কোরিয়া, পোল্যান্ড, চেক রিপাবলিক ও যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি প্রদেশে প্রচলিত আছে।

২০২০ সালের ডিসেম্বরে পাকিস্তানে এই বিলটি পাস করা হয়। ওই সময় এক বিবৃতিতে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানায়, এ ধরনের শাস্তি ‘নিষ্ঠুর ও অমানবিক’।

পার্লামেন্টে পাস হওয়া বিলে বলা হয়, পাকিস্তান সরকারকে অবশ্যই দেশব্যাপী বিশেষ আদালত স্থাপন করতে হবে, যাতে ধর্ষণের বিচার ত্বরান্বিত করা যায়। একই সঙ্গে যৌন নির্যাতনের মামলা চার মাসের মধ্যে দ্রুততার সঙ্গে নিষ্পত্তি করতে হবে।

শুধু তাই নয়, গণধর্ষণে দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে এই আইনে।

পাকিস্তানজুড়ে নারী ও শিশুদের ধর্ষণের হার বেড়ে যাওয়ায় অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবিতে গণবিক্ষোভের মুখে এমন বিল পাস করা হলো।

ডন ও সিনএনএন’র প্রতিবেদনে বলা হয়, বুধবার (১৮ নভেম্বর) পাকিস্তানের পার্লামেন্টের যৌথ অধিবেশনে ৩৩টি বিলের সাথে ফৌজদারি আইন বিল-২০২১ পাস হয়েছে। প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি নতুন ধর্ষণবিরোধী অধ্যাদেশ অনুমোদন দেওয়ার প্রায় এক বছর পর বিলটি পাস হলো।

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো