কটিয়াদীর নিখোঁজ মা’কে আড়াই বছর পর ফিরে পেল সন্তানেরা

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে আড়াই বছর ধরে নিখোঁজ মা’য়ের সন্ধান পেয়েছে তার সন্তানেরা । ওই বৃদ্ধ মহিলার বাড়ি কটিয়াদীর মসূয়া ইউপির চর-বেতাল গ্রামে। পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ উপজেলাতে সন্ধান পাওয়া যায় ওই হারিয়ে যাওয়া বৃদ্ধ মহিলার।

আজ (২৪ নভেম্বর বুধবার) সকালে পিরোজপুর নেছারাবাদ উপজেলার বলদিয়া ইউপির বিন্না গ্রামের বাবুল মেম্বারের আশ্রয়ে থাকা অবস্থায় সন্তান ও পরিবারের কাছে তুলে দেওয়া হয়েছে বৃদ্ধ মহিলাকে ।

দীর্ঘ আড়াই বছর পর মাকে সামনে পেয়ে জড়িয়ে ধরে তার ছেলে ও মেয়ে। এসময় তারা আবেগাপ্লুত হয়ে কান্না করতে থাকেন। মা সন্তানের আহাজারিতে এসময় উপস্থিত সবার চোখ অশ্রু সিক্ত হয়ে উঠে। এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণার সৃষ্টি হয়। দীর্ঘ বিচ্ছেদের পর মা তার সন্তানদের সামনে পেয়ে তিনিও চোখের পানি ফেলেন। পরে মা’কে নিয়ে তারা কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী নিজ এলাকায় চলে আসেন।

পারিবারিক সুএে জানা যায়, কটিয়াদী উপজেলার মসূয়া ইউনিয়নের চর-বেতাল গ্রামের সেলিম মিয়ার স্ত্রী অজুফা বেগম (৬০)। তিনি কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন। তার ছেলে ঢাকার মিরপুরে কাজের সুবাদে বসবাস করে সেখানেই মাকে নিয়ে থাকতো । হঠাৎ সেখান থেকে হারিয়ে যায় মা। এরপরে আড়াই বছর ধরে বহু খুঁজাখুঁজি করেও ওই বৃদ্ধ মহিলার সন্ধান পাচ্ছিল না তার পরিবার।

এদিকে পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ উপজেলার বলদিয়া বিন্না গ্রামের বাজারে এক মাস পূর্বে এক বৃদ্ধ মহিলাকে ঘুরাঘুরি করতে দেখে স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল মেম্বারকে জানানো হয় । উক্ত গ্রামে কর্মরত এনজিও কর্মী মল্লিক আব্দুল্লাহ ঘটনাটি সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী মো. আরিফুর রহমানকে জানালে তিনি ওই মহিলার পরিচয় জানার চেষ্টা করেন। মহিলার দেওয়া তথ্যের উপর ওই আইনজীবী ফেইসবুকের মাধ্যমে কটিয়াদীতে প্রাপ্তি সংবাদ দিলে স্থানীয়দের মাধ্যমে পরিবারের দৃষ্টিগোচর হলে তারা এসে নিয়ে যায়।

বলদিয়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য বাবুল মেম্বার বলেন, ‘ গ্রামের বাজারে বৃদ্ধ মহিলাকে ঘুরাঘুরি করতে দেখে স্থানীয়রা আমাকে জানায়। পরে চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে পরিষদের এাণ তহবিল থেকে কিছু সহায়তা করে স্থানীয় এক বাড়িতে আশ্রয়ের ব্যাবসা করি। মহিলার পরিচয় নিশ্চিত হয়ে এখন তার পরিবারের কাছে তাকে তুলে দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী এডভোকেট মো. আরিফুর রহমান বলেন, ‘ ওই গ্রামের এক এনজিও কর্মী ঘটনাটি আমাকে জানালে সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকে কটিয়াদীর স্থানীয়দের দৃষ্টি আকর্ষণ করার পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে পরিবার তার খোঁজ পেয়েছে। সন্তানেরা তাদের মা’কে খুঁজে পাওয়াতে মনে শান্তি লাগছে। মা সন্তান জীবিত থেকেও দেখা করতে না পারার এই বিচ্ছেদ যেন দীর্ঘ না হয় সেজন্য আমি জোর প্রচেষ্টা চালাই। অবশেষে আল্লাহ আমার মনের বাসনা পুরণ করেছেন।

হারিয়ে যাওয়া বৃদ্ধ মহিলার ছেলে দুলাল মিয়া বলেন, প্রথমেই আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করছি। আমার মায়ের জন্য বুকটা ছটফট করতো সবসময়। মা’কে খুঁজে পেয়ে আমি যেন পৃথিবী খুঁজে পেয়েছি। যারা আশ্রয় এবং খোঁজে সহযোগিতা করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

ছাইদুর রহমান নাঈম/বার্তা বাজার/শাহরিয়া

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো