কুমিল্লায় কাউন্সিলরকে প্রকাশ্যে হত্যা: ২ আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র সৈয়দ মো. সোহেলকে নিজ কার্যালয়ে তার সঙ্গীসহ গুলি করা হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলার দুই আসামি পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) রাতে কুমিল্লা মহানগরীর গোমতী নদীর বেড়িবাঁধ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) পরিমল দাশ।

নিহতরা হলেন, নগরীরর সুজানগর এলাকার রফিক মিয়ার ছেলে সাব্বির হোসেন (২৮) ও সংরাইশ এলাকার কাকন মিয়ার ছেলে সাজন (৩২)।

গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক পরিমল দাশ জানান, কাউন্সিলর হত্যা মামলার ৩ ও ৫ নম্বর আসামি সংরাইশ ও নবগ্রামে অবস্থান করছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে রাত পৌনে ১টার দিকে ওই এলাকায় কোতয়ালি মডেল থানা ও ডিবি পুলিশের একাধিক টিম তাদের গ্রেফতারে অভিযান চালায়।

এক পর্যায়ে গোমতী নদীর বেড়িবাঁধ এলাকায় আইনশৃঙ্খালা বাহিনী পৌঁছালে আসামিরা টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে থাকে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এক পর্যায়ে দুইজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে পুলিশের তিন সদস্যও আহত হয়েছেন। তাদের পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি ৭.৬৫ পিস্তল, একটি পাইপ গান, তাজা গুলি ও গুলির খোসা জব্দ হয়েছে।

২২ নভেম্বর (সোমবার) বিকেল ৪টার দিকে নগরীর পাথুরিয়াপাড়া এলাকার নিজ কার্যালয়ে বসেছিলেন কাউন্সিলর সোহেল। এসময় মুখোশধারী একদল দুর্বৃত্ত তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে তিনিসহ অন্তত পাঁচজন গুলিবিদ্ধ হন। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কাউন্সিলর সোহেল ও হরিপদ সাহা মারা যান।

বার্তা বাজারে/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো