রাজধানীতে রিকশাচালকে মারধর, দুই চীনা নাগরিককে গণধোলাই

ভাড়া নিয়ে দ্বন্দ্বে রাজধানীর উত্তরায় এক রিকশাচালককে মারধর করেছেন দুই চীনা নাগরিক। এ ঘটনায় তাদেরকে গ্রেফতার করে শনিবার (৪ ডিসেম্বর) আদালতে প্রেরণ করেছেন পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত আরেক চীনা নাগরিক এখনও পলাতক রয়েছেন।

শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) বিকালে উত্তরার জমজম টাওয়ারের কাছে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, বিকালে স্থানীয় লোকজন দেখতে পায় এক রিকশাচালককে দুই চীনা নাগরিক মিলে মারধর করছে। পরে সেখানে থাকা লোকজন মিলে ওই দুই চীনা নাগরিককে মারধর করে পুলিশে সোপর্দ করে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী রিকশা চালক বাদী হয়ে রাতেই উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করেছেন।

মামলায় আটক দুজন চীনা ইউ হাও (৩৬) ও জেকি (৪০) এবং পলাতক ওয়েই (৫৪) নামে আরেক চীনাকে আসামি করা হয়েছে।

ওই মামলায় আটক দুই জনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আজ শনিবার সকালে ঢাকার সিএমএম আদালতে পাঠালে তাঁদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, উত্তরা ১৩ নম্বর সেক্টরের ১৫ নম্বর রোড থেকে জমজম টাওয়ারের সামনে তিন চীনা নাগরিককে নিয়ে আসেন রিকশাচালক মিজানুর রহমান। ইউ হাও তাঁকে ২০ টাকা ভাড়া দেন। রিকশাচালক মিজানুর রহমান ৩০ টাকা ভাড়া দাবি করলে বাগ্‌বিতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে ইউ হাও তাঁকে লাথি মেরে রাস্তায় ফেলে মারধর করতে থাকেন। বিষয়টি দেখে সাধারণ জনগণ এগিয়ে গেলে ইউ হাও ছুরি বের করে রিকশাচালকের হাতে আঘাত করেন। তখন উত্তেজিত জনতা হাও এবং জেকিকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেন। এই ফাঁকে পালিয়ে যান ওয়েই।

এ বিষয়ে উত্তরা পশ্চিম থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিয়াজ মোহাম্মদ শরীফ বলেন, ‘উত্তরা ১৩ নম্বর সেক্টরে ভাড়া নিয়ে তর্ক-বিতর্কের জের ধরে চীনা নাগরিকেরা এক রিকশাচালককে মারধর করেন। বিষয়টি উপস্থিত জনতা দেখতে পেয়ে তাঁদের দুজনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।’

এসআই নিয়াজ মোহাম্মদ শরীফ বলেন, ‘ভুক্তভোগী রিকশাচালক তাঁকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারধর করার অভিযোগে একটি মামলা করেছেন। ওই মামলায় দুই চীনা নাগরিককে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। পলাতক আরেক চীনাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’

বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো