স্বামী কিংবা বাবার জায়গায় দাফন মিলেনি নওমুসলিম স্বপ্নার

মৃত্যুর পরেও স্বামী ও বাবার বাড়িতে কবরের জন্য শেষ জায়গাটুকু হয়নি নওমুসলিম গৃহবধু স্বপ্না বেগমের (৩০)। অবশেষে স্থানীয় এক ব্যক্তির সম্পত্তিতে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মীরা শনিবার (২৩ অক্টোবর দিনগত রাতে পানিতে ডুবে মৃত্যুবরণ করা স্বপ্না বেগমের দাফন কাজ সম্পন্ন করেছেন।

ঘটনাটি বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার ফুল্লশ্রী গ্রামের। স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য আসাদ খলিফার মহতি উদ্যোগে তার মালিকানাধীন সম্পত্তিতে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইয়ং স্টার ক্লাবের সদস্যরা জানাজা শেষে নওমুসলিম স্বপ্না বেগমের দাফন সম্পন্ন করেছেন।

এর আগে শুক্রবার সকালে ভাড়া বাড়ির পুকুরে কাজ করতে গিয়ে পানিতে ডুবে মারা যান এক সন্তানের জননী স্বপ্না বেগম। স্থানীয়রা স্বপ্নার মরদেহ পুকুরে ভাসতে দেখে থানা পুলিশকে খবর দেয়ার পর পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেন।

রোববার সকালে থানার ওসি (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম জানান, উপজেলার আস্কর গ্রামের সুভাষ বিশ্বাসের মেয়ে স্বপ্না পরিবারের অমতে গত আট বছর পূর্বে ধর্ম ত্যাগ করে গৌরনদী উপজেলার শাহজিরা গ্রামের রিপন বেপারীকে বিয়ে করেন।

বিয়ের পর থেকে বাবার পরিবারের সাথে রিপন ও স্বপ্নার কোন যোগাযোগ ছিলোনা। তারা আগৈলঝাড়া থানা সংলগ্ন কুয়াতিয়ারপাড় গ্রামের শাহ আলম হাওলাদারের ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছিলো। স্বপ্নার মৃত্যুর পর তার স্বামী রিপন বেপারীর সাথে পুলিশ একাধিকবার যোগাযোগ করেও তার কোন সন্ধান পায়নি।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, রিপন মেয়েদের সাথে প্রতারণা করে একাধিক বিয়ে করেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, স্বপ্নার মৃত্যুর পর তার মরদেহ গ্রহণ ও দাফনের জন্য বাবা-মা ও স্বামীর পরিবারের কোনো লোক পাওয়া যায়নি। তবে স্বপ্নার শিশু কন্যাকে পুলিশ তার বাবার বাড়িতে রেখে এসেছেন।

আরিফিন রিয়াদ/বার্তা বাজার/এসজে

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো