পুঁজি হারিয়ে রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা

পুঁজিবাজারে টানা দুইদিন বড় দরপতনের প্রতিবাদে রাজধানীর মতিঝিলে মানববন্ধন করেছেন বিনিয়োগকারীরা। মতিঝিলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে এ মানববন্ধন করেন তারা। এ সময় দ্রুত দরপতন থেকে পুঁজিবাজারকে রক্ষার দাবি জানান তারা।
সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার সূচকের পতনের মাধ্যমে শুরু হয় লেনদেন। মাত্র সোয়া এক ঘণ্টার মাথায় ডিএসই প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১০০ পয়েন্ট কমে যায়। সূচকের এ ধারা অব্যাহত ছিল দুপুর ১২টা ৩৬ মিনিটে পর্যন্ত। লেনদেনের আড়াই ঘণ্টায় ডিএসইর প্রধান সূচক কমে যায় ১৬৪ পয়েন্ট। এ দরপতনের প্রতিবাদে মতিঝিলে বিক্ষোভে নামেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা।

ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স গত ১০ কর্মদিবসে হারিয়েছে ৪৮৪ পয়েন্ট। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পতন হয়েছে আজ। সোমবার ডিএসইর প্রধান সূচকটি ১২০ পয়েন্ট হারিয়ে নেমেছে সাত হাজারের নিচে। সূচকটি বর্তমানে অবস্থান করছে ৬ হাজার ৮৮৫ পয়েন্টে। এছাড়াও ডিএসইর শরীয়াহ সূচক ‘ডিএসই এস’ এবং ‘ডিএসই ৩০’ যথাক্রমে ২২ ও ৫৩ পয়েন্ট করে হারিয়েছে আজ।

সোমবার ডিএসইতে মোট ৩৭৬টি কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়। এসব কোম্পানির মধ্যে ৩০৭টি কোম্পানিরই শেয়ারদরে পতন হয়েছে। দর বেড়েছে ৪৭টি কোম্পানির। বাকি ২২টি কোম্পানির শেয়ারদর অপরিবর্তিত ছিল।

এদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) ডিএসইর মতো সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। সিএসইর সার্বিক সূচক ৪২৬ পয়েন্ট কমে ২০ হাজার ১৪৪ পয়েন্টে অবস্থান করছে। সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৬০ কোটি ৫৩ লাখ টাকার শেয়ার।

উল্লেখ্য, বেশ কয়েকদিন ধরে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়াই সূচকের পতন ঘটছে। বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে পড়ায় বিনিয়োগকারীদের মনে সৃষ্টি হয়েছে আতঙ্ক। এমন অবস্থায় সাধারণ বিনিয়োগকারীরা পড়েছেন অস্বস্তিতে। গত ১০ অক্টোবর থেকে চলা এ দরপতনের পেছনে দায়ী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করতে তদন্ত কমিটি গঠন করার দাবি জানান বিনিয়োগকারীরা। যারা এ দরপতনের সঙ্গে জড়িত তাদের বিচারের আওতায় আনারও আহ্বান জানান তারা।

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো